৯ চৈত্র ১৪২৩ বঙ্গাব্দ, বৃহস্পতিবার ২৩ মার্চ ২০১৭, ৮:১০ অপরাহ্ন
শিরোনাম

রামপাল নিয়ে পঙ্কজ শরণকে আনু মুহাম্মদের চ্যালেঞ্জ

নিউজ ডেস্ক | নিউজবাংলাদেশ.কম
প্রকাশ: ১৬৩৭ ঘণ্টা, শনিবার ১২ মার্চ ২০১৬ || সর্বশেষ সম্পাদনা: ১২১৭ ঘণ্টা, বৃহস্পতিবার ১৩ অক্টোবর ২০১৬


রামপাল নিয়ে পঙ্কজ শরণকে আনু মুহাম্মদের চ্যালেঞ্জ - জাতীয়

রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্র নিয়ে ভারতীয় হাইকমিশনার পঙ্কজ শরণের এক বক্তব্যে উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম। 

রোববার সচিবালয়ে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপুর সঙ্গে বৈঠক শেষে তিনি (পঙ্কজ শরণ) বলেন, "রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্র হবে পরিবেশবান্ধব, তাই সুন্দরবনের কোনো ক্ষতি হবে না।" আর এর জবাবে ফেসবুকে কড়া সমালোচনা করে স্ট্যাটাস দেন অর্থনীতিবিদ আনু মুহাম্মদ।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ লেখেন, ভারতীয় পরিবেশ আইন অনুযায়ী এই প্রকল্প বেআইনি। 

তিনি প্রস্তাব দেন, এই প্রকল্প যেহেতু 'ভারতীয় ঋণ আর বিশেষজ্ঞদের তত্বাবধানে' নির্মিত হবে তাই সেটি 'নিজেদের দেশে স্থাপনের'। সেটি হলে বেশি দামেও ভারতে থেকে বিদ্যুৎ কিনে নেয়ার প্রস্তাব করেন তিনি।

আনু মুহাম্মদের স্টাটাসটি হুবহু তুলে ধরা হলো:

বাংলাদেশে ভারতের হাইকমিশনার পঙ্কজ শরণ বলেছেন, রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্রে সুন্দরবনের কোনো ক্ষতি হবে না। তারা আন্তর্জাতিক রীতিনীতি মেনেই সব করছেন। তাহলে জনাব, আপনাদের দেশের আইনের কথা কি মনে করবেন একটু? আপনাদের পরিবেশ আইনেই তো এই প্রকল্প বেআইনি। আপনারা ভারতের আইন ভঙ্গ করে গায়ের জোরে বাংলাদেশের জন্য, সারাবিশ্বের জন্য, সর্বনাশা এই কাজে নেমেছেন।

আন্তর্জাতিক আইনের প্রসঙ্গ আনলে তো আপনাদের দাঁড়ানোরই উপায় থাকবে না। এই প্রকল্প ধরে ওই এলাকায় আপনাদের আরও নানা পরিকল্পনার কথা এখন বাংলাদেশের মানুষ জানতে শুরু করেছে। আমরা ভারতের সঙ্গে বন্ধুত্ব চাই, কিন্তু একের পর এক বাংলাদেশের বিপর্যয় ঘটিয়ে আপনারাই বারবার, সীমান্তের মতো, বন্ধুত্বের পথে কাঁটাতারের বেড়া দিচ্ছেন।

আপনার পাশে দাঁড়িয়ে আমাদের বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী তো খুব জোর গলায় বললেন, আমাদের যতো বিদ্যুৎ দরকার ততো বিদ্যুৎ আপনারা ভারত থেকে দেবেন। তাহলে আর সুন্দরবনের ওপর এই জবরদস্তি কেন? সুন্দরবন রক্ষার জন্য আপনাদের এই বিনাশী প্রকল্পের অনেকগুলো বিকল্পের কথা আমরা আমাদের সরকারকে বহুবার বলেছি।

আর একটি কথা আপনাকে সরাসরি বলি: এই প্রকল্প যেহেতু আপনাদের কোম্পানির, যেহেতু আপনাদের ‘সুপারক্রিটিকাল টেকনোলজি’ এখানে ব্যবহার হবে, যেহেতু আপনাদের বিশেষজ্ঞদেরই ভূমিকা এখানে, যেহেতু ব্যবস্থাপনাও আপনাদের, যেহেতু আপনাদের ব্যাংকের থেকেই ঋণ, যেহেতু সব সিদ্ধান্তও আপনাদের তাহলে ‘আন্তর্জাতিক আইন মেনে’ এই প্রকল্প আপনাদের দেশেই বাস্তবায়ন করেন, আমরা আপনাদের কাছ থেকে বিদ্যুৎ কিনে নেব। লাভ দিয়েই কিনবো, চিন্তা করবেন না। কী বলেন?

রোববার রাতে দেয়া এই স্টাটাসটি এখন পর্যন্ত দেড় শতাধিকবার শেয়ার হয়েছে। আর এতে মন্তব্য করেছেন অন্তত ১১ জন ফেসবুক ব্যবহাকারী। যাদের অনেকেই এই প্রস্তাব সমর্থন করেছেন।

মিজানুর রহমান নামে একজন লিখেছেন, ‘পঙ্কজ শরণ সাহেব! সাহস থাকেতো চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করুন।’

নিউজবাংলাদেশ.কম/টিএবি 

সংশ্লিষ্ট লেখা 

নিউজবাংলাদেশ.কমে প্রকাশিত যে কোনও প্রতিবেদন, ছবি, লেখা, রেখাচিত্র, ভিডিও-অডিও ক্লিপ অনুমতি ছাড়া অন্য কোনও মাধ্যমে প্রকাশ, প্রচার করা কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয়।
আপনার মন্তব্য
এই বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত